গল্পসমূহ

লেখাপড়ায় মনোযোগ বাড়াবে যেসব খাবার

এস আর করিম

পুষ্টির উপর নির্ভর করে অনেক কিছু।

রাফি আর নিলয় একই বাসায় পাশাপাশি ফ্ল্যাটে থাকে। দুজনেরই বয়স প্রায় ১১। একসাথেই সকালবেলা স্কুলে যায়, ক্লাসে পাশাপাশি বসে, এক সঙ্গে খেলাধুলাও করে। সবকিছুই প্রায় এক… কিন্তু পড়ালেখায় দুইজনের মধ্যে রাত-দিন পার্থক্য।

রাফির হোমওয়ার্ক, পরীক্ষা, স্মরণশক্তি সবকিছুই খুব ভালো। ক্লাসে ও বরাবরই প্রথম পাঁচজনের মধ্যে থাকে। কিন্তু নিলয় অনেক চেষ্টা সত্ত্বেও পরীক্ষায় ভালো ফল করতে পারে না। সাধারণ কিছু মনে রাখতেও ওর অনেক কষ্ট হয়।

এই তফাতের কারণ কি?

জন্মের পর থেকেই আপনার সন্তানের মস্তিষ্ক বেশ দ্রুত বিকশিত হতে থাকে। বিশ্বব্যাপী পুষ্টিবিজ্ঞানীদের গবেষণা অনুযায়ী, মস্তিষ্কের এই উন্নয়ন এবং বৃদ্ধি পুষ্টির উপর নির্ভর করে। শিশু-বিশেষজ্ঞরাও বলেন, পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবার বাচ্চাদের মনোযোগ, স্মৃতি এবং মানসিক ক্ষমতার পূর্ণ সম্ভাবনায় পৌঁছে দিতে পারে। ছোটবেলা থেকেই পুষ্টিকর খাবারের অভ্যাস গড়লে, শিশুদের মাঝে সঠিকভাবে শেখার এবং আচরণের ভিত্তি স্থাপন করা সহজ হয়।

নিচে এমনই পাঁচটি পুষ্টিকর খাবারের কথা বলা হয়েছে-

১। ডিম

ডিমের সাদা অংশের প্রোটিন চটজলদি মনোযোগ বাড়াতে খুব সাহায্য করে। তাই  সব বয়সের বাচ্চাদের জন্যই এটা আবশ্যক। স্কুল শেষে ক্লান্ত হয়ে যখন বাচ্চারা বাসায় ফিরে, তখন অন্য নাস্তার চেয়ে একটি ডিম অনেক বেশী উপকার করবে। সন্ধ্যা কিংবা রাতের বেলা পড়ালেখা করতেও অতটা ক্লান্তি লাগবে না।

২।  দই

অনেক বাচ্চাই চকলেট বা চিনি না মেশালে দুধ খেতে চায় না। কিন্তু বাড়তি চিনি খাওয়া মোটেই ভালো না। তাই দুধের গুণ পেতে বাচ্চাদের জন্য দই খুবই ভালো। খেতেও অনেক মজা! এমনকি আইসক্রিমের বদলে দই ঠাণ্ডা করে জমিয়ে বাচ্চাকে খাওয়াতে পারেন। দইয়ে থাকে বাচ্চাদের জন্য উপকারী সব ফ্যাট। মনোযোগ বাড়াতে এই ফ্যাটগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

৩।  সামুদ্রিক মাছ

মস্তিস্কের মনোযোগ শক্তি বাড়াতে সামুদ্রিক মাছ অতুলনীয়। এতে আছে ভিটামিন ডি এবং ওমেগা ৩ -যা মানসিক দক্ষতা এবং স্মৃতিশক্তির হ্রাস থেকে রক্ষা করে। প্রতিদিন না হলেও সপ্তাহে তিন-চার দিন বাচ্চাদেরকে বড় মাছ খেতে দিন।

বাদাম

প্রোটিন ছাড়াও বাদামে আছে প্রয়োজনীয় ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন। তাই বাসায় সারা বছরই বিভিন্ন ধরনের বাদাম রাখার চেষ্টা করবেন। টিফিনে বা বিকেলের নাস্তায় এক মুঠো বাদাম আপনার বাচ্চার শুধু মনোযোগ না, মনও ভালো রাখতে সাহায্য করবে।

৫। আপেল

বাচ্চারা প্রায় সময়ই ক্ষুধা লাগলে মিষ্টি খাবার খেতে চায়। কিন্তু চিনিযুক্ত, পুষ্টিহীন খাবারের বদলে প্রতিদিন একটি আপেল খেতে দিন। আপেল যে শুধু স্বাস্থ্যের জন্যই উপকারী তা নয়, এতে আছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা মস্তিস্ক সজাগ রাখতেও সহায়তা করবে।

 
Search:
For every child
Health, Education, Equality, Protection
ADVANCE HUMANITY
Search: